ওয়েব ডিজাইন শেখার জন্য কোর্স করা কি খুব বেশি জরুরী

প্রযুক্তির এই যুগে দেশের যেকোনো শিক্ষার্থীর সুন্দর এবং আকর্ষণীয় ওয়েব সাইট বানানোর মতো দক্ষতা থাকা উচিৎ। অনেকেই বিষয়টা উপলব্ধি করতে পারে এবং সে জন্য নিজ থেকে কিংবা কোথাও কোর্স করে ওয়েব ডেভেলপিং শেখার জন্য। প্রায় সময় তারা ব্যর্থ হয়।

শুরুতে ওয়েব ডেভেলপিং অনেক সহজ মনে হলেও প্রফেশনাল একটি ওয়েব সাইট বানানো অনেক কঠিন। অনেকেই মনে করে এইচটিএমএল এবং সিএসএস পারলেই ওয়েব সাইট বানানো যায়। এই ধারনাটা ভুল। একটি প্রফেশনাল ওয়েব সাইট বানাতে অনেক গুলো বিষয়ের প্রতি লক্ষ রাখতে হয়।

HTML এর বেসিক জেনেই আপনি সুন্দর একটা ওয়েব সাইটের কাঠামো বানাতে পারবেন না। এর জন্য আপনাকে HTML এ এডভান্স হতে হবে। সহজ কথা হলো কোনো বেসিক দিয়েই কখনো প্রফেশনাল কাজ করা যায়না। বেসিক শিখি আমরা নিজেদেরকে এডভান্স করার জন্য প্রফেশনাল কাজে হাত দেওয়ার জন্য নয়।

অনেকেই বেসিক শিখেই প্রফেশনাল ওয়েবসাইট বানাতে যায়। দেখা যায় ৯০% ক্ষেত্রেই তারা ব্যর্থ হয়। আবার HTML এ এডভান্স হলেই আপনি ওয়েবসাইট এর ভালো কাঠামো বানিয়ে ফেলতে পারবেন বিষয়টা এমনও নয়। এর জন্য আপনাকে ওয়েবসাইটের ধরন বুঝতে হবে। ওয়েবসাইটের কাঠামো নিয়ে গবেষণা করতে হবে। ওয়েবসাইটের ব্যবহারকারী কারা সে অনুযায়ী ওয়েবসাইট এর কাঠামো বানাতে হবে।

আপনার ডিজাইন করা ওয়েবসাইটে কি কি কন্টেন্ট থাকবে এবং সেগুলো ব্যবহারকারীদের সুবিধা অনুযায়ী কিভাবে সন্নিবেশ করা যায়, এটা নিয়ে ছোট একটা রিসার্চ করতে হবে। এরপর আপনি আপনার HTML এর এডভান্স জ্ঞান দিয়ে ওয়েবসাইট এর কাঠামো ডেভেলপ করতে পারেন। এইটুকু কাজ শেষ করে ধরে নিতে পারেন ১০% কাজ হয়েছে সম্পূর্ণ ওয়েবসাইটের।


ওয়েব ডিজাইন কোর্স


HTML এ হেড অংশে Meta’ এবং Link Syntax এবং Body অংশে Section Syntax ওয়েবসাইটের কাঠামোর জন্য অতি গুরুপ্তপূর্ণ একটা বিষয়। তাই নতুনদের অন্যন্য বিষয়ের সাথে এগুলো খুব ভালো করে বুঝে নিতে হবে।

ওয়েবসাইটের কাঠামোতে কন্টেন্টগুলোকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন এবং সন্নিবেশের জন্য প্রয়োজন হয় CSS এর। HTML টা ওয়েবসাইটের একটা কংকাল গঠন করে মাত্র। CSS এর মধ্যে আবরণ হিসেবে কাজ করে এই CSS। CSS দিয়ে কন্টেন্ট এর Size, Position, Color, Border, Animation, Responsive সহ আরো শত শত কাজ করে ওয়েবসাইটকে সুন্দর এবং ব্যবহার উপযোগী করা হয়।

►► আরো দেখুন : লক্ষ্য যদি হয় ওয়েব ডিজাইন, জানতে হবে যেগুলো

এইটুকু হয়ে গেলে বলা যায় ওয়েবসাইটের ৪০% কাজ শেষ হয়েছে। কংকালে আবরণ থাকলেই একটা মানুষ সুন্দর দেখায় না উলঙ্গ দেখাবে? হ্যাঁ, নবীন ওয়েব ডেভেলপাররা এখানেই সব থেকে বড় ভুল করে।

একটা মানুষকে সুন্দর দেখাতে হলে আবরণ এর পর তাকে কাপড় পরাতে হবে। মেয়ে হলে মেকাপ দিতে হবে! লিপস্টিক দিতে হবে আরো কত কিছু! আর ছেলে হলে কাপড় পরিয়ে ছেড়ে দিলেই চলবে এদের এতো সাজাতে হয়না। (একটু ফান করলাম)

ওয়েব ডিজাইন কোর্স

মূল কথা হলো কংকালে আবরণ দেওয়ার পর সেটাকে সাজাতে হবে। আপনি কোনো একটা কম্পানির ওয়েবসাইটে গেলে দেখবেন কন্টেন্টগুলো কত সুন্দর করে সাজানো গোছানো। কত সুন্দর Smooth Graphic। কন্টেন্ট এর Color গুলো কত সুন্দর মিলে যায়। Smooth Items এবং Hover সব মিলিয়ে কত সুন্দর ওয়েবসাইট। ওয়েবসাইটকে এমন Smooth এবং সুন্দর করতে প্রয়োজন Bootstrap. বর্তমানে ওয়েব সাইট গুলোতে Bootstrap এর ব্যবহার অপরিহার্য। এ পর্যায়ে এসে আপনার ওয়েবসাইটcর ৬০% কাজ শেষ হয়েছে বলা যায়।

ওয়েবসাইটকে আকর্ষণীয় করতে এবং অত্যাধুনিক ভাবে ব্যবহার উপযোগী করতে এর কন্টেন্ট গুলোকে ডাইনামিক করা প্রয়োজন হয়। যেমন: কোথাও Tap বা Click করলে Sidebar Menu বেরিয়ে আসে বা বা Alert Message দেখায় এমন আরো অনেক ডাইনামিক কাজের জন্য ব্যবহার করতে হয় JavaScript. জাভাস্ক্রিপ্ট এর ব্যবহার ছাড়া কোন ভাবেই ওয়েবসাইটকে পূর্ণাঙ্গ বলা যায় না।

আশার কথা হলো সাধারণ Front End ডেভেলপারদের জন্য জাভাস্ক্রিপ্ট এর বেসিক কিছু শিখে নিলেই হবে। এডভান্স হওয়ার প্রয়োজন নেই। কিছু কিছু মেথড দিয়েই কন্টেন্ট গুলোকে ডাইনামিক করা হয়। সে জন্য টুকটাক JQUERY শিখে নিতে হবে। যদি ওয়েবসাইটটা ডাইনামিক অ্যাপ্লিকেশন হয় তাহলে এডভান্স জাভাস্ক্রিপ্ট বা অন্যান্য ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করা হয়। Back End হলে সুবিধা অনুযায়ী ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করে ওয়েবসাইটকে ডেভেলপ করা হয়। আর সাধারণ Front End হলে শুরুতে যা বলেছিলাম, টুকটাক JQUERY শিখে নিলেই হবে। এপর্যায়ে এসে ৯০% কাজ শেষ হয়েছে বলা যায়।

আপনি যদি চান আপনার সাইটটি শুধু আপনিই না পৃথিবীর যে কেউ যে কোন জায়গা থেকে ভিজিট করতে পারবে, তাহলে আপনাকে আপনার পছন্দ অনুযায়ী ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে হবে। বাংলাদেশে অনেক ডোমেইন এবং হোস্টিং প্রোভাইডার আছে, যারা আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু অর্থের বিনিময়ে এই সেবাগুলো দিয়ে থাকবে। এরকমই একটি প্রতিষ্ঠান XeronHost, যেখান থেকে আপনি খুব সহজে এবং তুলনামূলক কম খরচে আপনার সাইটের জন্য ডোমেইন এবং হোস্টিং পেয়ে যাবেন। আমি ব্যক্তিগতভাবে তাদের সার্ভিস গ্রহণ করেছি।

ডোমেইন এবং হোস্টিং এর প্রক্রিয়া শেষ হলে আপনার পরবর্তী কাজ হচ্ছে আপনার সাইটকে SEO করা। যাতে খুব সহজে কোন ভিজিটর আপনার সাইটকে গুগলে খুঁজে পায়। এই পর্যায়টি উত্তীর্ণ হলে বলা যাবে আপনি একটা ওয়েবসাইটকে সম্পূর্ণ (১০০%) ডেভেলপ করতে পেরেছেন।

আপনি কীভাবে শিখবেন এই কাজগুলো?

প্রথমেই বলবো যে প্রসেসটা ব্যাখ্যা করলাম তা শেখার জন্য কোনো কোর্স করার প্রয়োজন নেই। আপনার যদি সত্যি শেখার প্রবল ইচ্ছা থাকে তাহলে গুগল, ইউটিউব, বিভিন্ন আর্টিকেল এবং W3 Schools থেকে স্টাডি করে নিজের স্কিল ডেভেলপ করতে পারেন। এরপর ইউটিউব থেকে প্রফেশনাল সম্পূর্ণ ওয়েবসাইট ডেভেলপিং এর কোনো টিউটোরিয়াল দেখে তা ডেভেলপের চেষ্টা করুন। এভাবে আপনার মধ্যে প্রফেশনল স্কিল ডেভেলপ হয়ে যাবে ক্রমে ক্রমে।

কোর্স করা কি খুব জরুরী?

না। আপনি কোথাও কোর্স করলে তারা শুধু বেসিক শেখাবে আর কিছু আইডিয়া দিবে। কেননা তারা কখনোই আপনাকে প্রফেশনাল ডেভেলপার হওয়ার জন্য আমার ব্যাখ্যা করা প্রসেস সম্পূর্ণ শেখাবে না। কারণ, তারাও এইটুকুই পারে। আপনিও তা শিখে গেলে তাদের ব্যবসা আর থাকবে না। এতো কষ্ট করে টাকা খরচ করে কোর্স না করে আমি বলবো প্রফেশনাল ওয়েব ডেভেলপার হতে নিজেই চেষ্টা করুন। যারা একে বারেই কিছু বোঝেন না তারা কোর্স করলেও জেনে রাখুন প্রফেশনাল হতে আপনাকে নিজেই চেষ্টা করে হতে হবে। টাকা নষ্ট করার আগে ভেবে দেখবেন।


প্রিয় পাঠক, কোর্সটিকায় আপনি কোন বিষয়ে লেখা চান, তা লিখে নিচে কমেন্ট করুন। ওয়েব ডিজাইন, ডেভেলপমেন্টে এবং ফ্রিল্যান্সিং শিখতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিন।

Print Friendly, PDF & Email

৬ Comments

  1. ভাই একদম নতুন তাই কোনটা সবার আগে শিখবো আর কোথা থেকে, আমার এই বয়সে কোর্স করাটা বাসা থেকে দিবেনা। আর কোর্স এর আশা করি প্রয়োজন নেই তাহলে কিভাবে(w3school google youtube) সহ আর কোথা থেকে কি দিয়ে শুরু করবো। ব্যাসিকটাই নেই। আর কম্পিউটার কি মাস্ট?

    1. কোন জিনিসটা আগে শুরু করতে হবে এবং কোথা থেকে শুরু করতে হবে, তা বিস্তারিতভাবে বলা আছে।

      যাদের কম্পিউটার নেই, তারা ইচ্ছে করলে ফোন থেকেও ওযেব ডিজাইন শিখতে পারেন। এন্ডয়েড ফোনের জন্য এখন অনেক কোড এডিটর পাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll Up