চিরতরে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় কি (অবশ্যই যা খাবেন)

আপনি নিশ্চই গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় কি এটি নিয়ে বেশ চিন্তিত। বর্তমানে অনেক মানুষই এই সমস্যাটিতে ভোগে। সাধারণত গ্যাস্ট্রিক কোন রোগ নয়; কিন্তু শরীরে এর ব্যপক বিস্তৃতি আমাদের জীবনকে জটিল করে তুলতে পারে

অনেকেই গ্যাস্ট্রিকের কারণে প্রিয় সব খাবার গ্রহণ করতে অনীহা প্রকাশ করেন। আবার অনেকে চিরতরে গ্যাস্ট্রিক দূর করার জন্য কার্যকরী সব ঔষধ খোঁজ করেন। কিন্তু আপনি কি জানেন ঘরোয়া কিছু কার্যকরী প্রতিকার রয়েছে যা গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় হিসেবে কাজ করে?

যেকোন শারীরিক সমস্যা সমাধানে সবার প্রথমে হোম রিমেডি সন্ধান করা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ হোম রিমেডিগুলো সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক হওয়ায় এতে কোন পাশ্বপ্রতিক্রিয়ার ভয় থাকে না। গ্যাস্ট্রিক থেকে চিরমুক্তির জন্যও রয়েছে এমন কিছু হোম রিমেডি, যা আপনি আপনার হাতের নাগালেই পেয়ে যাবেন।

গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় কি?

আগেই উল্লেখ করেছি, গ্যাস্ট্রিক কোন রোগ নয়। তাই প্রাথমিকভাবে এটি উদ্বেগের কোন কারণও না। প্রায়শই ঘরোয়া প্রতিকার ব্যবহার করে উপসর্গগুলোর চিকিৎসা করা সম্ভব হয়। আজ কোর্সটিকায় আমরা গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় সম্পর্কে জানবো। যা আপনাকে চিরতরে বদহজম ও পেটে ব্যাথা থেকে মুক্তির পথ তৈরি করে দেবে।

১. প্রচুর পানি পান করুন

আমরা প্রতিদিন যে খাবার খাই তা দক্ষতার সাথে হজম এবং শোষণের জন্য শরীরে পানির প্রয়োজন হয়। শরীর পানিশূন্য হওয়া বা পানি স্বল্পতার সৃষ্টি হওয়া হজমকে আরও কঠিন এবং কম কার্যকর করে তোলে, যা পেট খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ায়।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য ও ঔষধ বিভাগের সুপারিশ মতে, একজন প্রাপ্ত বয়সের নারীর দিনে প্রায় ২.৭ লিটার পানি পান করা উচিত। পক্ষান্তরে পুরুষদের প্রয়োজন হয় প্রায় ৩.৭ লিটার। এর প্রায় ২০ শতাংশ খাদ্য থেকে আসবে, বাকি অংশ সরাসরি পানীয় থেকে আসবে। তবে ছোট বাচ্চাদের বড়দের তুলনায় একটু কম পানির প্রয়োজন হয়।

যাদের হজমের সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য হাইড্রেটেড থাকা অপরিহার্য। বমি এবং ডায়রিয়া খুব দ্রুত পানিশূন্যতার দিকে নিয়ে যেতে পারে তাই এই উপসর্গযুক্ত ব্যক্তিদের পানি পান করা উচিত। আপনি যদি খুঁজতে চান গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় কি তাহলে প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে পানি পানই হতে পারে আপনার জন্য কার্যকরী সমাধান।

২. আদা

আদা চিরতরে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় হিসেবে প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। পেট খারাপ এবং বদহজমের জন্য আদা একটি সাধারণ প্রাকৃতিক প্রতিকার। আদায় রয়েছে Gingerols এবং Shogaols নামক রাসায়নিক উপাদান যা দ্রুত পেটের সংকোচন করতে সাহায্য করে। এটি এমন সব খাবার পেট থেকে সরিয়ে দিতে পারে যা বদহজম সৃষ্টি করে।

গ্যাস্ট্রিক দূর করা ছাড়াও আদার মধ্যে থাকা রাসায়নিক উপাদানগুলো বমি বমি ভাব, বমি এবং ডায়রিয়া কমাতেও সাহায্য করতে পারে। আপনার যদি পেট খারাপ হয় তাহলে খাবারে আদা যোগ করতে বা চায়ের সাথে পানের চেষ্টা করতে পারেন।

৩. পুদিনা

শ্বাসকে মসৃণ করার পাশাপাশি পুদিনায় থাকা মেন্থল বমি এবং ডায়রিয়া প্রতিরোধ, অন্ত্রের মধ্যে পেশী স্প্যাম হ্রাস এবং ব্যথা উপশমে সহায়তা করতে পারে। একটি গবেষণায় উঠে এসেছে যে, ইরান, পাকিস্তান এবং ভারতে বদহজম, গ্যাস এবং ডায়রিয়ার জন্য পুদিনা ঐতিহ্যগতভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

পুদিনা পাতা কাঁচা এবং রান্না উভয় ভাবেই খাওয়ার উপযোগী। তবে ঐতিহ্যগতভাবে আমরা প্রায়ই চা তৈরির জন্য এলাচ দিয়ে পুদিনা পাতা সেদ্ধ করে থাকি। কিন্তু এছাড়াও পুদিনা পাতার গুঁড়ো বা রস এবং অন্যান্য চা, পানীয় বা খাবারের সাথে মিশিয়েও খাওয়া সম্ভব।

৪. লেবুর রস, বেকিং সোডা এবং পানির মিশ্রণ

কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, এক চিমটি বেকিং সোডার সঙ্গে পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে খেলে হজমের বিভিন্ন সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এই মিশ্রণ কার্বনিক এসিড উৎপন্ন করে, যা গ্যাস এবং বদহজম কমাতে সাহায্য করতে পারে। এটি লিভারের ক্ষরণ এবং অন্ত্রের গতিশীলতা উন্নত করতে পারে।

লেবুর রসে থাকা অম্লতা এবং অন্যান্য পুষ্টি উপাদানগুলি পিত্ত অ্যাসিডকে নিরপেক্ষ করে এবং পেটে অম্লতা কমাতে চর্বি এবং অ্যালকোহল হজম করতে এবং শোষণ করতে সহায়তা করে।

গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় হিসেবে আপনি নির্দিধায় এই মিশ্রণটি তৈরি করে খেতে পারেন। এই মিশ্রণটির জন্য ১ চা চামচ তাজা লেবুর রস এবং ১ চা চামচ বেকিং সোডা পরিমাণমত পানিতে মিশিয়ে পান করুন। এটি আপনার গ্যাস্ট্রিকের ব্যথার দূর করতে চমৎকার ভাবে কাজ করবে।

৫. দারুচিনি

দারুচিনিতে বেশ কয়েকটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা হজমকে সহজ করতে এবং পাচনতন্ত্রের জ্বালা এবং ক্ষতির ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। এসব অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মধ্যে রয়েছে ইউজেনল, সিনামালডিহাইড, লিনালুল, এবং কর্পূর।

দারুচিনির অন্যান্য পদার্থ গ্যাস, ফুলে যাওয়া, ক্রাম্পিং এবং বেলচিং কমাতে সাহায্য করতে পারে। এগুলো পেটের অম্লতা দূর করতে সাহায্য করতে পারে অম্বল এবং বদহজম কমাতেও ভূমিকা রাখে।

পেট খারাপ হওয়া ব্যক্তিরা তাদের খাবারে ১ চা চামচ ভালো মানের দারুচিনি পাউডার বা এক ইঞ্চি দারুচিনি স্টিক যোগ করার চেষ্টা করতে পারে। বিকল্পভাবে, চা বানানোর জন্য দারুচিনি ফুটন্ত পানির সাথে মিশিয়ে দেখতে পারেন। এটি প্রতিদিন দুই বা তিনবার করলে বদহজম দূর করতে সাহায্য করতে পারে।

৬. লবঙ্গ

লবঙ্গে এমন পদার্থ থাকে যা পেটে গ্যাস কমাতে সাহায্য করতে পারে এবং গ্যাস্ট্রিক নিঃসরণ বৃদ্ধি করতে পারে। এটি ধীর হজমকে দূর করতে পারে, যা চাপ এবং ক্র্যাম্পিং হ্রাস করতে পারে। লবঙ্গ বমি বমি ভাব এবং বমি কমাতেও সাহায্য করতে পারে।

পেট খারাপ হওয়া ব্যক্তি দিনে একবার ঘুমানোর আগে ১ চা চামচ লবঙ্গ গুঁড়ো ১ চা চামচ মধুর সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন। বমি বমি ভাব এবং জ্বালাপোড়ার জন্য লবঙ্গকে ফুটন্ত পানির সাথে একত্রিত করে একটি লবঙ্গ চা তৈরি করতে পারেন।

৭. পেপারমিন্ট চা

গোলমরিচ গাছের পাতা থেকে তৈরি বিশেষ এক ধরনের চা’কে পিপারমিন্ট চা বলা হয়। এটি হজমজনিত সমস্যা এবং পেটের প্রদাহ দূরীভূত করতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে। সারাবিশ্বেই বদহজম দূর করতে পেপারমিন্ট চা চিকিত্সাগত গুণাবলীর জন্য ব্যবহৃত হয়।

এটি শরীরে একটি অ্যান্টিস্পাসমোডিক প্রভাব তৈরি করে, যা বমি বমি ভাব এবং বদহজমের মতো পেটের সমস্যা দূর করার জন্য এটি একটি দুর্দান্ত পছন্দ হতে পারে। খাবারের পরে এক কাপ পেপারমিন্ট চা পান করুন যাতে আপনার পেট দ্রুত শান্ত হয় বা পকেটে কয়েক টুকরো পেপারমিন্ট রাখুন যা খাওয়ার পরে চুষতে পারেন।

৮. অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

অনেকেই মনে করে অ্যাপেল সিডার ভিনেগার ত্বকের অবস্থার উন্নতি থেকে শুরু করে ওজন কমাতে সাহায্য করে। কিন্তু এটি বদহজম কমাতেও সাহায্য করতে পারে। যেহেতু খুব কম পেটের অ্যাসিড বদহজমকে ট্রিগার করতে পারে, তাই আপনার পেটের অ্যাসিড উৎপাদন বাড়ানোর জন্য আপেল সিডার ভিনেগার পান করুন।

কীভাবে তৈরি করবেন অ্যাপেল সিডার ভিনেগার? এক কাপ পানিতে এক থেকে দুই চা চামচ কাঁচা, আনপেস্টুরাইজড আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে নিন এবং দ্রুত উপশমের জন্য পান করুন। অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার নিরাপদ হলেও এটি অতিরিক্ত বা অপরিমেয়ভাবে পান করলে দাঁত ক্ষয়, বমি বমি ভাব, গলা জ্বালা এবং রক্তে শর্করার পরিমাণ কমে যেতে পারে।

৯. মৌরি বীজ

স্বাস্থ্য ভালো রাখতে মৌরি বীজের উপকারীতা অসীম। এছাড়াও খাবারের পরে বদহজম নিরাময় করতে পারে এই মৌরি বীজ। একই সাথে এটি পেট ফাঁপা, বমি বমি ভাব, এবং ফুসকুড়ি মত অন্যান্য গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যা প্রশমিত করতে পারে। এছাড়াও এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য অন্ত্রের অনিয়ম দূর করতে পারে।

কীভাবে খাবেন? ১/২ চা চামচ চূর্ণ মৌরি বীজ পানিতে রাখুন এবং পান করার আগে ১০ মিনিটের জন্য ফুটতে দিন। যখনই আপনি বদহজমের সম্মুখীন হবেন তখন মৌরি চা পান করুন। তবে মৌরি বীজ চিবিয়েও খাওয়া যায়। তাই মৌরি বীজের চা খেতে না চাইলে বিকল্প হিসেবে আপনি এটি চিবিয়েও খেতে পারেন।

১০. কিছু পানীয়

চা ছাড়াও অন্যান্য কিছু পানীয় চিরতরে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় হিসেবে কাজ করতে পারে। যার মধ্যে রয়েছে ঠাণ্ডা দুধ, বাটারমিল্ক, পুদিনার রস, লেমন জুস ইত্যাদি। এক গ্লাস ঠাণ্ডা, চর্বিহীন এবং চিনিমুক্ত দুধ পান করলে অ্যাসিডিটি বা অ্যাসিড রিফ্লাক্সের সময় অনুভূত পোড়া অনুভূতি থেকে তাৎক্ষণিক স্বস্তি পাওয়া যায়।

দুধে রয়েছে ক্যালসিয়াম যা কেবল অ্যাসিডকে দমনই করে না বরং এর উৎপাদনকে বাধা দেয় এবং প্রতিরোধ করে। এছাড়া খাবারের আগে বা খাওয়ার সময় ঠাণ্ডা মাখন খাওয়া পেটের গ্যাসের বিরুদ্ধে একটি পুরনো ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে প্রচলিত। এটি পেটে গ্যাস্ট্রিক অ্যাসিডের অস্তিত্ব বাধাগ্রস্থ করে তোলে।

গ্যাস্ট্রিক দূর করার আরো কিছু উপায়

  • হাতে অল্প সময় নিয়ে খাবার খেলে খাবার সঠিকভাবে চাবানো হয় না। এতে ঐ খাবার পেটে হজম হতে বেশ সময় লাগে। তাই ধীরে ধীরে এবং সময় নিয়ে খাবার খান।
  • ধূমপান এবং অ্যালকোহল পান করা থেকে বিরত থাকুন। ধূমপান গলা জ্বালা করতে পারে এবং পেট খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ায়।
  • দেরীতে হজম হয় এমন খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। এসব খাবারের মধ্যে রয়েছে ভাজা বা চর্বিযুক্ত খাবর, ফাস্টফুড এবং লবণাক্ত বা উচ্চ রাসায়নিয়ক দ্বারা সংরক্ষিত খাবার।
  • বিশুদ্ধ নারিকেলের পানি পান করুন। এতে রয়েছে উচ্চ মাত্রার পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম। এই পুষ্টিগুলি ব্যথা, পেশী খিঁচুনি এবং বদহজম কমাতে সাহায্য করে।
  • কুসুম গরম পানিতে গোসল করুন বা হিটিং ব্যাগ ব্যবহার করুন। তাপ শরীরের উত্তেজিত পেশীগুলিকে শিথিল করতে পারে এবং বদহজমকে সহজ করতে পারে।
  • কলাতে রয়েছে ভিটামিন বি৬, পটাশিয়াম এবং ফোলেট। এই পুষ্টিগুলো খিঁচুনি, ব্যথা এবং পেশীর খিঁচুনি কমাতে সাহায্য করতে পারে। তাই প্রতিদিন অন্তত দুটি কলা খেতে পারেন।

গ্যাস্ট্রিক নিয়ে চিন্তিত?
দেখুন: দামসহ গ্যাস্ট্রিক এর ঔষধ এর নাম


শেষ কথা

উপরে বর্ণিত দীর্ঘ আলোচনায় আপনি গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় সম্পর্কে জানলেন। এসকল পরামর্শগুলো মেনে চললে আপনাকে ঘন ঘন বদহজমের সাথে বাঁচতে হবে না। গ্যাস্ট্রিক দূর করতে আমরা যে সব উপায়গুলো বর্ণনা করেছি, তার সবগুলো প্রাকৃতিক এবং ঘরোয়া উপায়। তাই এগুলো গ্রহণ করলে আপনাকে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সম্মুখীন হতে হবে না।

তবে পেটের অস্বস্তি আপনার জীবনকে ব্যাহত করতে পারে, তাই আপনার গ্যাস্ট্রেিক সমস্যা যদি উদ্বেগজনকভাবে বেড়ে যায় তাহলে বিশেষজ্ঞ কোন ডাক্তারের কাছে যান, রোগ নির্ণয় করুন এবং চিকিৎসা শুরু করুন। এতে আপনি তাড়াতাড়ি ভাল বোধ করতে পারবেন এবং একটি উচ্চ মানের জীবন উপভোগ করতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *