নতুন ফ্রিল্যান্সারদের জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং কতটা সম্ভাবনাময়?

ডিজিটাল মার্কেটিং

ফ্রিল্যান্সিং এর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কোর্সটিকা অফিসিয়াল গ্রুপে অনেকেই প্রশ্ন করেন। এরকম একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন নিয়ে আজ আলোচনা করবো। আজকের আলোচ্য বিষয় হচ্ছে, ডিজিটাল মার্কেটিং শিখেও অনেক ফ্রিল্যান্সাররা কাজ পাচ্ছেন না। কিন্তু কেন?

ফ্রিল্যান্সিং করার অনেক আগ্রহ ছিল। তাই ডিজিটাল মার্কেটিং শিখছি। নিজেকে দক্ষ ফ্রিল্যান্সার হিসেবে গড়ে তোলার জন্য যথেষ্ট চেষ্টা করে যাচ্ছি। অনেকটা এগিয়ে গেছি। কিন্তু অনেক নতুন ফ্রিল্যান্সাররা পোস্ট করছেন দক্ষ হওয়া সত্যেও তারা কাজ পাচ্ছে না।

তাই মনোবল হারিয়ে ফেলছি। সিনিয়র ভাইদের কাছে প্রশ্ন। ডিজিটাল মার্কেটিং নতুন ফ্রিল্যান্সারদের জন্য কতটুকু সম্ভাবনাময়। আসলেই কি নতুনরা কাজ পায়না?

আর ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের শুধু একটা বিষয়। যেমন শুধুমাত্র SEO নিয়ে দক্ষতা অর্জন করলে কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু। নাকি সবগুলো বিষয় (যেমন: কন্টেন্ট রাইটিং, ফেসবুক মার্কেটিং ইত্যাদি) নিয়ে পরিপূর্ণ দক্ষতা অর্জন করতে হবে?

আমাদের গ্রুপে প্রশ্নটি করেছেন রাজিব সওদাগর। তিনি গত আট মাস ধরে ডিজিটাল মার্কেটিং অনুশীলন করছেন। অতঃপর এখন প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ না পেয়ে হতাশ।

কোর্সটিকায় সর্বদাই আমরা কাজ করে লাখ লাখ টাকা উপার্জন করবো এটা ভাবার থেকে, কাজ ভালোভাবে শিখে মার্কেটপ্লেসে নামবো, এটা ভাবতে বেশি উৎসাহ দিয়ে থাকি।

ডিজিটাল মার্কেটিং অনেক বড় একটা সেক্টর আর এখানে কাজের কোনো অভাব নেই। মনে করুন ডিজিটাল মার্কেটিং এর ৭ টি বড় শাখার একটি হচ্ছে এসইও। আর এই এসইও এর এর তিনটি শাখার একটি হচ্ছে ‌ব্যাকলিংক।

► ► কিভাবে ব্যাকলিংক করবেন? তার একটি পূর্ণাঙ্গ ভিডিও আছে আমাদের। এখানে ক্লিক করে দেখুন।

‌ব্যাকলিংক বিল্ড করার অনেকগুলো উপায় আছে। যার মধ্যে একটি হচ্ছে Email Outreach। অনেক ডিজিটাল মার্কেটার বা এসইও এক্সপার্ট আছেন, শুধু এই Email outreach এর কাজটাই করে মাসে $1000 বা তারও বেশি আয় করে থাকেন।

এখন তাদের দেখাদেখি আপনিও যদি ভাবেন শুরুতেই ১০০০ ডলার মাসিক ইনকাম করবেন, তাহলে সেটা ভুল ধারণা। কারণ, তারাও শুরুতে এটা করতে পারেনি। তাদের এই মাসিক ১০০০ ডলার ইনকাম করতে অনেক অপেক্ষা করতে হয়েছে এবং অনেক লড়াই করতে হয়েছে। যেটা কিনা আপনাকেও করতে হবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর আরেকটি শাখা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর বাজার ৩০০ বিলিয়ন ডলারের ওপর। যা কিনা বাংলাদেশের এক অর্থবছরের আয়ের সমান। এসইও তে বছরে ১০০ বিলিয়নের উপর কাজ হয়। তাই এসইও না শুধু ব্যাকলিংক এক্সপার্ট হলেও ভালো একটা এমাউন্ট উপার্জন করতে পারবেন।

► ► অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং : কত টাকা ইনকাম করতে পারবেন? দেখুন এখানে।

নতুনদের জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং সব সময় কঠিন। কেননা এই সেক্টরে দক্ষতার প্রমাণ করার বাহ্যিক উপকরণ থাকে না। যেমন ধরুন আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইনার। আপনি ভালো লোগো ডিজাইন পারেন। এখন আপনার ক্লায়েন্ট আপনাকে বললো একটি স্যাম্পল ডিজাইন করে পাঠাতে। আপনি করেও পাঠালেন।

কিন্তু আপনাকে যদি আপনার ক্লায়েন্ট বলে, ফেইসবুকে একটি ক্যাম্পেইন করে দেখান। তাহলে সেটা সম্ভব না। কারণ, এখানে অর্থ ব্যয়ের সম্পর্ক আছে। আর যেহেতু এটা অর্থ ব্যয়ের সাথে জড়িত তাই কোন উদ্যোক্তা অদক্ষ কাউকে দিয়ে ডিজিটাল মার্কেটিং করানোর ঝুঁকি নেবেন না।

তাই নতুনদের জন্য কাজ পাওয়া অনেকাংশেই কঠিন হয়ে যায়। কাজ পেতে হলে আপনাকে কাজের প্রমাণ দেখাতে হবে। কিন্তু আপনি কিভাবে সেটা করবেন?

কিভাবে নিজেকে যোগ্য প্রমাণিত করবেন?

১. প্রথমত কাজ শিখুন, দ্বিতীয়ত কাজ শিখুন এবং তৃতীয়ত কাজ শিখুন।

২. পরিচিত ও দক্ষ বা সিনিয়রদের সাথে একটি ভালো সম্পর্ক তৈরি করুন। তাদের কাছ থেকে পরামর্শ গ্রহণ করুন এবং আপনার সমস্যার কথা তাদের জানান।

৩. কিছুটা বিনিয়োগ করে কাজ অনুশীলন করুন। আপনি যে কাজ পারেন, তার প্রমাণ রাখার জন্য নিজের একটি ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট তৈরি করুন।

৪. বিনিয়োগ করা সম্ভব না হলে কোনো কোম্পানি বা সিনিয়রদের অধীনে ইন্টার্নশিপ (কাজ) করুন। ফ্রি তে হলেও কাজ করুন এবং অভিজ্ঞতা অর্জন করুন।

৫. অনলাইন মার্কেটপ্লেস, জবসাইট, সিনিয়রদের টাইমলাইন এবং বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুগুলোতে নিয়মত আপডেট থাকার চেষ্টা করুন।

৬.  ধৈর্য ধারণ করুন। এটি সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। কারণ, ডিজিটাল মার্কেটিং এ ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে আপনাকে একটু বেশিই পরিশ্রম করতে হবে। কোন ক্ষেত্রেই অধৈর্য হওয়া যাবে না ।


প্রিয় পাঠক, কোর্সটিকায় আপনি কোন বিষয়ে লেখা চান, তা জানিয়ে নিচে কমেন্ট করুন। ওয়েব ডিজাইন, ডেভেলপমেন্ট এবং ফ্রিল্যান্সিং শিখতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll Up